করোনা চিকিৎসায় এবার আশার আলো দেখাচ্ছে কুষ্ঠ রোগের ওষুধ মাইক্রোব্যাক্টেরিয়াম

সমগ্র বিশ্ব অধীর আগ্রহে তাকিয়ে রয়েছে একটি কার্যকর ভ্যাকসিনের দিকে, যার মাধ্যমে মরণঘাতী এই ভাইরাস থেকে মুক্তি পাবে বিশ্ব। পুরো পৃথিবীতে যখন ব্যাপকভাবে গবেষণার কার্যক্রম চলছে, তখনই নতুন করে আবারও একটু আশার আলো দেখালো ভারত। মাইক্রোব্যাকটেরিয়াম-ডব্লিউ নামের একটি কুষ্ঠ রোগের ওষুধে করোনা রোগীদের দেখে কমতে শুরু করেছে সংক্রমণের বিষ, এমনটাই দাবি করছেন ভারতীয় চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। নিবিড় আমীনের ডেস্ক রিপোর্ট। মাইক্রোব্যাক্টেরিয়াম-ডব্লিউ নামের ওষুধটি প্রথম তৈরী করা হয়েছিল কুষ্ঠ রোগের মোকাবেলার লক্ষ্যে। পরবর্তীতে তা টিবি রোগের প্রতিষেধক হিসেবেও ব্যাবহার হতে থাকে। ব্লাডার ক্যান্সারের মতো ভয়াবহ রোগেও অভূতপূর্ণ সাফল্যর দেখা পাইয়ে দিয়েছিলো এই ওষুধ। আর এবার এর জাদুকরী প্রভাব দেখা গেছে মরণঘাতী করোনা ভাইরাসের ওপরেও, এমনটাই দাবি করছেন ভারতীয় চিকিৎসকরা। চারজন গুরুতর অসুস্থ করোনা রোগীর দেহে রপর তিনদিন ইনজেকশনের মাধ্যমে মাইকোব্যাক্টেরিয়াম প্রয়োগ করেন পিজিআই চন্ডিগড়ের চিকিৎসা গবেষকরা। আর তাতে কোনোরকম পার্শপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই সংক্রমণ কমে যাবার মতো ঘটনা দেখতে পাওয়া গেছে। আর এর মাধ্যমেই আনুষ্ঠানিকভাবে মিলে গেছে ওষুধটির ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের অনুমতি। ভারতের চন্ডিগড়, ভোপাল এবং দিল্লির তিনটি স্থানে তিনটি পর্যায়ে চলবে এই ওষুধের ট্রায়াল, প্রাথমিকভাবে আইসিইউ এ ভর্তি গুরুতর ৫০ জন, দ্বিতীয় পর্যায়ে করোনা রোগীর ঘনিষ্ট সাহচর্যে থাকা ৫০০ ব্যাক্তি, আর তৃতীয় পর্যায়ে কম ঝুঁকিপূর্ণ রোগীদের শরীরে প্রয়োগ করে দেখা হবে এই ওষুধ। প্রথম ট্রায়েলের ফলাফল বুঝতে সময় লাগতে পারে ৪০ দিনের মতো। আশানরুপ ফল পেলেই দ্বিতীয় ও তৃতীয় পর্যায়ের পরীক্ষার পথে এগুবেন গবেষকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *