নিখোজ আইনজীবির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার

নুর আলম, রংপুর থেকে: নিখোঁজের পাঁচ দিন পর রংপুরের আইনজীবি রথীশ চন্দ্র ভৌমিক বাবু সোনার (৫৮) লাশ উদ্ধার। পুলিশ ও র‌্যাব বলছে, স্ত্রীর পরকীয়ার কারণেই খুন করা হয় পিপি রথীশ চন্দ্র ভৌমিককে। গত মঙ্গলবার দিবাগত রাত সোয়া ১টার দিকে রংপুর নগরীর মোল্লাপাড়ায় স্ত্রী’র প্রেমিকের ভাইয়ের নির্মাণাধীন বাড়ির মেঝে থেকে অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব-১৩ রংপুরের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর আরমিন রাব্বি জানান, তারা প্রথমেই পরকীয়ার বিষয়টি মাথায় রেখে মাঠে তদন্তে নামেন র‌্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থাসহ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা । পুলিশ বাবু সোনার স্ত্রী তাজহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা স্নিগ্ধা ভৌমিক ও তার প্রেমিক একই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কামরুল ইসলামের মোবাইল ফোনের কললিস্ট বের করে। কললিস্ট দেখে আঁতকে উঠেন পুলিশ। প্রতিদিন প্রেমিক- প্রেমিকা জুটি ৩০ থেকে ৩৫ বার মোবাইলে কথা বলতেন। ওই কললিস্ট দেখে সন্দেহ হলে গত শনিবার রাতে নগরীর রাধাবল্লভের বাড়ি থেকে প্রথমে গ্রেফতার করা হয় কামরুল ইসলামকে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে হত্যাকা-ের তথ্য জানায় কামরুল। গত মঙ্গলবার রাতে র‌্যাব বাবু পাড়ার বাড়ি থেকে দীপা ভৌমিককে গ্রেফতার করে। রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের স্ত্রী দীপা ভৌমিকের দেয়া তথ্য অনুযায়ী বাবুপাড়ার বাড়ি থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দূরে মোল্লাপাড়ায় খাদেমুল ইসলাম জাফরীর নির্মাণাধীন বাড়ির মেঝে থেকে লাশটি উদ্ধার করে। রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের ছোট ভাই সুশান্ত ভৌমিক, রংপুর আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক, অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর হোসেন তুহিনকে ঘটনাস্থলে নিয়ে যান লাশ শনাক্তের জন্য। লাশটি ফুলে ফেঁপে যাওয়ায় চিনতে পারছিলেন না। এর পর সুশান্ত ভৌমিক ও জাহাঙ্গীর হোসেন তুহিন খুন হওয়া রথীশ চন্দ্র ভৌমিকের পায়ের জুতা দেখে লাশ শনাক্ত করেন। গতকাল বুধবার ভোরে লাশটি উদ্ধার করে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

রংপুরের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান বলেন, স্ত্রীর পরকীয়ার কারণে রথীশ চন্দ্র ভৌমিককে খুন হতে হলো। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত আইনজীবীর স্ত্রী এবং তার প্রেমিকসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আরো যারা জড়িত তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

মতামত দিন

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More