গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ প্রায়ত সংসদ এমপি লিটন হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু

গাইবান্ধা সদর প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের ক্ষমতাসীন দলের এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যা মামলার বাদী ফাহমিদা বুলবুল কাকুলীর সাক্ষ্যগ্রহণ করেছেন আদালত।

রবিবার (৮ এপ্রিল) দুপুরে গাইবান্ধা জেলা ও দায়রা জজ আদালতে সাক্ষ্য দেন তিনি। আদালতের বিচারক রাশেদা সুলতানার তার সাক্ষ্যগ্রহণ করেন। এসময় মামলার প্রধান আসামি আব্দুল কাদের খানসহ অন্য আসামীরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

এরআগে, এ মামলায় দুই দফায় সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ পিছিয়ে ৮ এপ্রিল ধার্য্য তারিখ নির্ধারন করেন একই আদালতের বিচারক রাশেদা সুলতানা।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো. শফিকুল ইসলাম শফিক বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আদালতের ধার্য্য তারিখ অনুযায়ী সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য মামলার বাদী ফাহমিদা বুলবুল কাকুলীকে আদালতে উপস্থিত করা হয়। পরে দীর্ঘসময় বিচারক তার সাক্ষ্যগ্রহণ করেন। সাক্ষ্য গ্রহণের সময় মামলার বাদি উল্লেখ করে বলেন, প্রধান আসামি আব্দুল কাদের খানসহ অন্য আসামীরা তার ভাইকে হত্যা করেছেন। হত্যারকান্ডের বিস্তারিত ঘটনা তুলে ধরাসহ অপরাধীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন। এসময় আসামি আব্দুল কাদের খানসহ আসামীরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এ মামলার পরবর্তী ধার্য্য তারিখ থেকে অন্য সাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে’।

তিনি আরও বলেন, ‘এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যা মামলায় ছোট বোন ফাহমিদা বুলবুল কাকুলীর দায়ের করা মামলায় গত ৭ ফেব্রুয়ারি সাবেক এমপি আব্দুল কাদের খানসহ আট আসামির বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেছেন আদালত। চার্জ গঠনের পর বিচারক সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ১৮ মার্চ ধার্য্য করেন। কিন্তু ধার্য্য তারিখ মামলার প্রধান আসামি আব্দুল কাদের খান অসুস্থ্য হয়ে পড়ায় সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়নি। পরে বিচারক ২ এপ্রিল সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ধার্য্য করেন। কিন্তু সেদিনেও সাক্ষ্য গ্রহণ করা সম্ভব না হওয়ায় ৮ এপ্রিল সাক্ষ্য গ্রহণের ধার্য্য তারিখ করেন বিচারক’।

প্রসঙ্গত ২০১৬ সালের ৩১ ডিসেম্বর সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গার শাহবাজ (মাস্টারপাড়া) গ্রামে নিজ বাড়িতে আততায়ীর গুলিতে নিহত হন মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন। এ ঘটনায় লিটনের বোন ফাহমিদা বুলবুল কাকুলী বাদী হয়ে অজ্ঞাত ৪-৫ জনকে আসামি করে সুন্দরগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে ২০১৭ সালের ৩০ এপ্রিল একই আসনের (জাপা) সাবেক এমপি অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল আব্দুল কাদের খাঁনসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ।

চার্জশিটভুক্ত অন্য আসামিরা হলেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা চন্দন কুমার, কাদের খানের পিএস শামছুজ্জোহা, তার ব্যক্তিগত গাড়ি চালক আব্দুল হান্নান, ভাড়া করা কিলার মেহেদী হাসান, শাহীন মিয়া, রানা মিয়া ও কসাই সুবল চন্দ্র। আসামিদের মধ্যে চন্দন কুমার পলাতক রয়েছেন। এছাড়া অন্য আসামিরা কারাগারে আছেন।

মতামত দিন

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More