সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৫:৪৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম:
কুড়িগ্রামে রেলের জমি থেকে উচ্ছেদকৃত বাস্তহারাদের ডিসি অফিস অবস্থান কর্মসূচি জয়পুরহাট পৌরসভার সীমানা বর্ধিত করে পল্লী এলাকাকে সংযুক্ত করার প্রতিবাদ গোবিন্দগঞ্জে দুবৃর্ত্তদের হাতে আহত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্কুল ছাত্রের মৃত্যু গোবিন্দগঞ্জে আওয়ামীলীগের উদ্যোগে মুজিববর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত স্বামীকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় স্থায়ী হবেন নুসরাত ফারিয়া ‘আমার জীবনের সবচেয়ে খারাপ সময় শুরু হয় তখন যখন আমি কেবিসি জিতি’ -সুশীল কুমার। রাণীশংকৈলে পেঁয়াজে গড়ম ঝাঁঝ, প্রতিকেজি পেঁয়াজ ১০০ টাকা নড়াইল কালনা সড়কের উপরে মাছের  আড়ৎ  রাণীশংকৈল পৌরসভা নির্বাচন, সাম্ভাব্য প্রার্থীদের আগাম গণসংযোগ নড়াইলে ডিবি পুলিশের অভিযানে পলাতক দুই আসামি ৯৭ পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার   
কুড়িগ্রামে ১৪০ কোটি টাকার  ক্ষতি কমাতে বিকল্প বীজতলা তৈরী

কুড়িগ্রামে ১৪০ কোটি টাকার  ক্ষতি কমাতে বিকল্প বীজতলা তৈরী

রুহুল আমিন রুকু কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি :
কুড়িগ্রামে পরপর তিন দফা বন্যায় ব্যাপক ক্ষতি হয় আমন বীজতলার। বন্যার পানি নেমে যাওয়ার পর জমি কর্ষন, বীজ সংগ্রহ ও বপনে বাড়তি অর্থ ব্যয়ে যখন কৃষক দিশেহারা তখন ঘাটতি কমাতে সরকারি উদ্যোগে ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিউনিটি বীজতলা, ভাসমান বীজতলা ও বাড়ির ভিতর প্লেট পদ্ধতিতে বিকল্প বীজতলা কৃষকের মুখে হাসি ফুটিয়েছে। সরকারি প্রণোদনায় এসব বীজ বিনামূল্যে পেয়ে নতুন উদ্যোমে মাঠে নেমেছে কৃষকরা।
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, চলতি বছর দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় কুড়িগ্রামে ১৭ হাজার হেক্টর জমির ফসল বিনস্ট হয়। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ১ লক্ষ ৩৫ হাজার কৃষক। সরকারিভাবে কৃষিতে ক্ষতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১৪০ কোটি টাকা। এরমধ্যে ২৫হাজার ৮১০জন কৃষকের আমন বীজতলার ক্ষতি হয়েছে ১ হাজার ৪০৯ হেক্টর জমিতে। আমন বীজতলার ঘাটতি মোকাবেলায় সরকারিভাবে ১০৫টি কমিউনিটি বীজতলা, ১১২টি ট্রে বীজতলা এবং শতাধিক ভাসমান বীজতলা তৈরী করা হয়েছে। যার মাধ্যমে ২১ হাজার কৃষক বিনামূল্যে ২০ হাজার ৯২২ বিঘা জমিতে আমন চাষ করার সুযোগ পাচ্ছে। এদিকে জেলায় এবার আমনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লক্ষ ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে। এখন পর্যন্ত অর্জিত লক্ষ্যমাত্রা ৯৪ হাজার ৫৩৫ হেক্টর। আমন বীজতলার লক্ষ্যমাত্রা ৬ হাজার ৩ হেক্টর হলেও বিভিন্ন প্রণোদনা দিয়ে আমন বীজতলা তৈরী করায় লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে ৭ হাজার ৪৭৫ হেক্টর জমিতে।
বুধবার ২৬ অক্টোবর সকালে সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, বন্যার পানি থেকে রেহাই পেতে কৃষি বিভাগের পরামর্শে ও সহযোগিতায় বাড়ির ভিতরের উঁচু উঠোনে বীজতলা তৈরী করেছেন জেলার উলিপুর উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের লালদীঘির পাড় এলাকার কৃষক মতিয়ার রহমান। তার প্রদর্শনী বীজতলা পরিদর্শনে এসেছেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম, কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান প্রধান, উলিপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নুর-এ-জান্নাত রুমি, উপজেলা কৃষি অফিসার সাইফুল ইসলাম, পাঁচপীর ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ  নূরুল আমিন, দুর্গাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবেদ আলী সরকার, পাঁচপীর বøকের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ রানা, কৃষক মতিয়ার রহমান, সেতু মন্ডল, আব্দুর রহমানসহ আশেপাশের কৃষকরা।
কৃষক মতিয়ার রহমান জানান, বাড়ির পাশে বপন করা বীজতলা এবারের বন্যায় ডুবে যায়। এসময় কৃষি বিভাগের কাছে পরামর্শ চাইলে তারা বাড়ির উঠোনে বীজতলা তৈরীর পরামর্শ দেয়। তাদের কাছ থেকে ৬ কেজি বিআর-২২ নাভিজাত বীজ ও ৫২টি ট্রে বাড়িতে নিয়ে আসি। তখন চারদিকে থৈ থৈ পানি। বীজ বপনের কোন জায়গা নেই। শেষে বাড়ির ভিতরের উঠোনে ট্রে-তে বীজতলা স্থাপন করি। আজ ১৫দিন বয়সী চারা দুই বিঘা জমিতে বপন করলাম। কৃষি বিভাগ থেকে রাইচ ট্রান্সপ্লান্টার মেশিন দিয়ে শতকে ১০টাকা হারে ২বিঘা জমিতে মাত্র ৩৩০টাকা খরচেই রোপনের কাজ শেষ হয়ে গেল।
একই ইউনিয়নের পাঁচপীর ছড়ারপাড় গ্রামের কৃষক সেতু মিয়া জানান, আমি ১০ শতক জমিতে বীজতলা তৈরী করেছিলাম। বন্যায় পুরোপুরি নষ্ট হয়ে যায়। পরে কৃষি বিভাগের সহায়তায় বাড়ির পাশে বিলের মধ্যে ভাসমান বীজতলা তৈরী করেছি। ১২টা ভাসমান বেডে ১২ কেজি বীজ লেগেছে। আর ৪দিন পর চারার বয়স ২০দিন হলেই ৪বিঘা জমিতে লাগাতে পারবো।
অপরদিকে পাঁচপীর সরকারবাড়ির কৃষক আবু বক্করের পূত্র আব্দুর রহমান জানান, আমাদের গ্রামে কৃষি বিভাগ উঁচু ১ একর জমি লিজ নিয়ে সেখানে ৩০০ কেজি বিআর-২৩ নাভীজাত বীজ বপন করেছে। এই বীজ ৬৬জন কৃষক ২২ একর জমিতে লাগাতে পারবে। চারার বয়স ১৮দিন হয়েছে। আর দুদিন পরই লাগানো যাবে। দীর্ঘস্থায়ী তিন দফা বন্যার ধকল কাটাতে কৃষি বিভাগের এই সহায়তা বন্যাকবলিত কৃষকদের ঘুড়ে দাড়ানোর প্রত্যয় হয়ে দাঁড়িয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের উপপরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান প্রধান জানান, আমন আবাদ যাতে বিঘিœত না হয় এজন্য বন্যা পরবর্তী কৃষি পূনর্বাসন কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। চলতি বছর জেলায় আমন চারার ঘাটতি মোকাবেলায় ১০৫টি কমিউনিটি বীজতলা, ১১২টি ট্রে বীজতলা এবং শতাধিক ভাসমান বীজতলা তৈরী করা হয়েছে। যা বিনামূল্যে কৃষকের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে। এরফলে বীজতলার ঘাটতি পুরণ করতে পারবে কৃষক।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2020 nbnews71.com
Design & Developed BY NB Web Host