শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০১:০২ অপরাহ্ন

শিরোনাম
জয়পুরহাটে সরকারি ভাবে বোরো চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু উখিয়ায় পুলিশের অভিযানে ইয়াবাসহ আটক-২ চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের ইফতার ও সেহরি বিতরণ ঘুমধুমে ইয়াহিয়া গ্রুপের ঈদ বস্ত্র বিতরণ সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি করোনা আক্রান্ত ॥ দোয়া কামনা নড়াইলে কাইজ্জায় ব্যবহৃত ঢাল ও সরকি উদ্ধার  নড়াইলে আটক ৫ জামাত নেতাকে জেলহাজতে  ঘুমধুমে ইয়াহিয়া গ্রুপের ঈদ বস্ত্র বিতরণ উখিয়ার সীমান্তে বিজিবি’র জালে ৫০ হাজার ইয়াবাসহ মাদক কারবারি… নড়াইলে করোনায় আক্রান্ত রোগীদের বিনামূল্যে অক্সিজেন  নড়াইলে বৈঠক চলাকালে জামাত নেতাসহ আটক ৫ প্রকাশিত হলো লাবনীর ‘তোর হবে রে মরণ’ গজল! নড়াইলের শীর্ষ প্রতারক বাদশা ২রাউন্ড গুলিভর্তি ওয়ান শুটারগান সহ সাতক্ষীরায় গ্রেপ্তার কুড়িগ্রামে গোল্ডেন ক্রাউন তরমুজ চাষে তিন বন্ধুর ব্যাপক সাফল্য অর্জন ঘুমধুমে রেডিয়েন্ট গ্রুপের অর্থায়নে মসজিদের ছাঁদ ঢালাই উদ্ধোধন করলেন যুবনেতা ছৈয়দুল বশর উখিয়ার সীমান্তে মালিকবিহীন দেড় লাখ ইয়াবা উদ্ধার বিজিবি’র নড়াইলের পল্লীতে দুইটি গাঁজার গাছ সহ গ্রেপ্তার ১ নড়াইলের পল্লীতে প্রতিবেশীর হামলায় আহত তিনজন, আটক ২ বজ্র আঁটুনি ফস্কা গেরো উলিপুরে ৪০দিনের শ্রমিক দিয়ে বোনের বাড়িতে মাটি কাটাচ্ছেন মেম্বার রাণীশংকৈলে ‘হ্যালো নার্সিং বাংলাদেশ’এর পক্ষ থেকে ৪০০ অসহায়ের মাঝে ইফতার ও ঈদ বস্ত্র বিতরণ।।
কুড়িগ্রাম জেলায় বোরো ক্ষেতে নেক ব্লাস্টের আক্রমণ দিশেহারা কৃষক

কুড়িগ্রাম জেলায় বোরো ক্ষেতে নেক ব্লাস্টের আক্রমণ দিশেহারা কৃষক

রুহুল আমিন রুকু, স্টাফ রিপোর্টারঃ
‘পঁচিশ শতক ধানের ভুঁই গাড়ছি। তাক হিনা আপদ ধরছে। এ্যালা কি খায়া বাঁচমো বাবা কনতো বাচ্চা কোচ্চাক নিয়া! করোনার জন্য মানুষের দেহো কি দুর্গ-দশা হয়া গেইচে। মানুষ বাঁচপের নাগছে না। এ্যালা কি করমো কনতো!’ এমন আক্ষেপের কথা জানালেন কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলার চাকিরপশার ইউনিয়নের জয়দেব হায়াত গ্রামের পঞ্চাশোর্ধ আয়মন বেওয়া। তিনি পঁচিশ শতক জমিতে ব্রিধান-২৮ লাগিয়েছিলেন যা নেক ব্লাস্ট  রোগে আক্রান্ত হয়ে সব চিটা হয়ে গেছে।
কৃষি বিভাগ বলছে, বিরুপ আবহাওয়া এবং কীটনাশক কাজে না লাগায় প্রায় ৪ হাজার হেক্টর বোরো ধান নেক ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হয়ে চিটা হয়ে গেছে। নষ্ট হওয়ার পথে রয়েছে আরো অনেক বোরো ক্ষেত। এই ধান দিয়েই বছরের বেশিরভাগটা সময় খাবার যোগান দিত যে কৃষক পরিবার; এখন তাদের কপালে দুশ্চিন্তার ছাপ। কৃষি বিভাগের পরামর্শ এবং সংক্রমিত জমিতে কীটনাশক স্প্রে করেও শেষ রক্ষা হয়নি এবার। কুড়িগ্রাম কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ সূত্র জানায়, চলতি বোরো মৌসুমে জেলার ৯ উপজেলায় ১ লাখ ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধানের চাষ করা হয়েছে। এরমধ্যে চিকন ধান আবাদ করা হয়েছে ২২ হাজার হেক্টর জমিতে। এসব চিকন ধানেই দেখা দিয়েছে নেক ব্লাস্টের  আক্রমন। বিশেষ করে ব্রিধান-২৮ ও ব্রিধান-৮১ যারা লাগিয়েছেন তারা পরেছেন বিপাকে। ফলে এসব কৃষকের দিশেহারা অবস্থা। কৃষি বিভাগ বলছে বিরুপ আবহাওয়া এবং অনেক ক্ষেত্রে কীটনাশক কাজে না লাগায় ধান ক্ষেতে দেখা দেয় এই নেক ব্লাস্ট (ধানের গলাপচা রোগ)। সংক্রমিত জমিতে ছত্রাক নাশক স্প্রে করেও পুরোপুরি কাজ হচ্ছে না। একরের পর একর জমিতে পাকা ধানে চিটা হয়ে যাচ্ছে। যে ধান পরিবারের খাদ্য মেটানোর পর খরচ ওঠানোর কথা; সেই কাংখিত ধান না পেয়ে হতাশ ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা।
রাজারহাট উপজেলার চাকিরপশার ইউনিয়নের জয়দেব হায়াত গ্রামের মৃত: নছর উদ্দিন তেলির পূত্র নুর মোহাম্মদ (৫০) জানান, ‘এক একর জমির ভাতই আমি খাই এবং ২/৪ মন বেঁচি কামলা কৃষাণের দাম দেই। এখন বেঁচাতো দূরের কথা নিজের ভাতও হবার নয়। পরামর্শ মোতাবেক আমি খরচো করছি, অষুধ পাতিও দিছি। ট্রিটমেন্ট ঠিকি করছি অথচ ধান চিটা হইছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2020 nbnews71.com
Design & Developed BY NB Web Host