শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮:৫২ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম:
কুড়িগ্রামে রেলের জমি থেকে উচ্ছেদকৃত বাস্তহারাদের ডিসি অফিস অবস্থান কর্মসূচি জয়পুরহাট পৌরসভার সীমানা বর্ধিত করে পল্লী এলাকাকে সংযুক্ত করার প্রতিবাদ গোবিন্দগঞ্জে দুবৃর্ত্তদের হাতে আহত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় স্কুল ছাত্রের মৃত্যু গোবিন্দগঞ্জে আওয়ামীলীগের উদ্যোগে মুজিববর্ষ উপলক্ষে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত স্বামীকে নিয়ে অস্ট্রেলিয়ায় স্থায়ী হবেন নুসরাত ফারিয়া ‘আমার জীবনের সবচেয়ে খারাপ সময় শুরু হয় তখন যখন আমি কেবিসি জিতি’ -সুশীল কুমার। রাণীশংকৈলে পেঁয়াজে গড়ম ঝাঁঝ, প্রতিকেজি পেঁয়াজ ১০০ টাকা নড়াইল কালনা সড়কের উপরে মাছের  আড়ৎ  রাণীশংকৈল পৌরসভা নির্বাচন, সাম্ভাব্য প্রার্থীদের আগাম গণসংযোগ নড়াইলে ডিবি পুলিশের অভিযানে পলাতক দুই আসামি ৯৭ পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার   
উখিয়ায় পুলিশকে অবরুদ্ধ করে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা 

উখিয়ায় পুলিশকে অবরুদ্ধ করে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা 

শ.ম.গফুর,উখিয়া,কক্সবাজার থেকেঃ

কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং ২০ নং ক্যাম্পে পুলিশ দুধর্ষ সন্ত্রাসী আবু তাহেরকে আটক করে নিয়ে আসার সময় ৪/৫ শতাধিক রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা পুলিশকে অবরুদ্ধ করে রাখে এবং ক্যাম্পের অভ্যান্তরে রাস্তায় ব্যারিকেড  দেয়।

বুধবার দুপুর ১২ টায় রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এ ঘটনা ঘটে। পরে ক্যাম্পে নিয়োজিত বিশেষ আইনশৃংখলা বাহিনী ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে আসামী সহ পুলিশকে উদ্ধার করে নিয়ে আসে। রোহিঙ্গা ক্যাম্প বর্তমানে সন্ত্রাসীদের আস্তানায় পরিণত হয়েছে। খুন, ছিনতাই, চুরি, ডাকাতি, অবৈধ ব্যবসা, নিত্যনৈমত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

উখিয়ার ২২টি রোহিঙ্গা শিবিরে প্রায় ৭ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা রাতের বেলায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে বলে জানিয়েছেন রোহিঙ্গা নেতা সিরাজুল মোস্তাফা ও মোহাম্মদ নুর। সন্ত্রাসীরা দিনের বেলায় ঘুমিয়ে থাকলেও রাত হলে ক্যাম্পে ছড়িয়ে পড়ে। যার কারণে যুবতি মহিলাদের ঘরে রাখতেও তারা চিন্তিত হয়ে পড়েছে।
রোহিঙ্গাদের সন্ত্রাসী কর্মকান্ড বন্ধ না হলে একদিন রোহিঙ্গারা স্থানীয়দের বিপক্ষে অবস্থান নেবে। তাই এখনো  সময় আছে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের খুঁজে বের করে আটক করার। তাঁরা যেহেতু আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের উপরও চড়াও হয়ে উঠেছে তা ভাবতে হবে, এসব সন্ত্রাসী রোহিঙ্গারা কতদূর পর্যন্ত পৌছেছে।

পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান এম. গফুর উদ্দিন চৌধুরী জানান, এনজিও সংস্থার লোকজন রোহিঙ্গাদের দা, কুড়াল, সরবরাহ দিয়েছে। তিনি বলেন, ওইসব রোহিঙ্গারা সাধারণ রোহিঙ্গাদের মারধর করতে দ্বিধাবোধ করেনা। সম্প্রতি ওইসব রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা বালুখালী ক্যাম্পের হেডমাঝি আরিফ উল্লাহকে প্রকাশ্যে গলা কেটে হত্যা করেছে।

বুধবার ২০ নং ক্যাম্পের ঘটনার ব্যাপারে জানতে চাইলে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার আবুল কালাম জানান, ক্যাম্প পুলিশ ১ জন উশৃংখল রোহিঙ্গাকে ধরে নিয়ে আসার সময় এ ঘটনা ঘটে। ওই সময় পুলিশ আত্মরক্ষার্থে ২ রাউন্ড ফাকা গুলি বর্ষণ করে।

আটককৃত সন্ত্রাসী আবু তাহের মিয়ানমারের তুমব্রু বাজারের বাসিন্দা বলে রোহিঙ্গা নেতা মোহাম্মদ হোছন জানিয়েছেন।

উখিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের বলেন, ক্যাম্প পুলিশ একজন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে আটক করার পর তার সহযোগিরা পুলিশকে অবরুদ্ধ করে রেখেছিলো বলে জেনেছি। পরে অবশ্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিশেষ টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে ধৃত আসামীকে নিয়ে উখিয়া থানার পুলিশের নিকট সোপর্দ্দ করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2020 nbnews71.com
Design & Developed BY NB Web Host